ঢাকা 6:56 pm, Saturday, 28 January 2023

ভিডিও ফেসবুকে নাকি ইউটিউবে আপলোড করবেন ?

  • আপডেট সময় : 08:57:09 am, Friday, 8 April 2022 325 বার পড়া হয়েছে

আসসালামু আলাইকুম!

কেমন আছেন সবাই? আশা করি সবাই ভালো আছেন। আমিও আল্লাহর রহমতে ভালই আছি। আজকে আমি আলোচনা করব ভিডিও ফেসবুকে নাকি ইউটিউবে আপলোড করবেন ? কোনটি বেশি লাভজনক

তো বন্ধুরা চলুন শুরু করা যাক :

ভিডিও ফেসবুকে নাকি ইউটিউবে আপলোড করবেন ?

ভিডিও ফেসবুকে নাকি ইউটিউবে আপলোড করবেন ?

আসসালামালাইকুম আমি চাইছি ফেসবুকটা ইউটিউবে ভিডিও কল কিন্তু বেশ ভালো চলে আর আমরা বেশ ভালো সংখ্যক মানুষ ভিডিও দেখে থাকি ফেসবুকে ভিডিও আপলোড করে যেমন ইনকাম করা সম্ভব তেমন ভালো একটা ফিউচার করা সম্ভব কিন্তু সমস্যাটা হলো আমরা এমন অনেকে আছে যারা বেস্ট কোয়ালিটি ফুল ভিডিও কলিং তৈরি করে ইউটিউবে আপলোড করছি বাট সফলতা পাচ্ছি না ফেসবুকে আপলোড করতে পারছি না আর এজন্যই ভিডিওতে আমি তিনটি বিষয় নিয়ে কথা বলব প্রথম দুটি প্ল্যাটফর্ম যেমন ভিন্ন দুটি প্ল্যাটফর্মের অডিয়েন্স a320 আমি কিভাবে বুঝবো আমার ভিডিও কনটেন্ট কোন প্ল্যাটফর্ম এর জন্য বেস্ট আমি তোমার ভিডিও ফেসবুকে আপলোড করবো নাকি ইউটিউবে আপলোড করবো এদের ভিতরে কোন প্লাটফর্মে আমার ভিডিও আপলোড করলে আমি সবথেকে বেশি মানুষের রেসপন্স সবথেকে বেশি পাব আমরা সকলেই জানি যে ফেসবুক বা ইউটিউবে ভিডিও মেক করা সম্ভব কিন্তু এই দুটি প্লাটফর্মে মনিটাইজেশন এনিমেল করতে হলে বেশ কিছু শর্ত পূরণ করতে হয়।

ভিডিও ফেসবুকে নাকি ইউটিউবে আপলোড করবেন ?

কোনটিতে মনিটাইজেশন করার সবথেকে সহজ এবং আপনি খুব দ্রুত এনেবেল করে ইনকাম শুরু করতে পারবেন এটি প্লাটফর্মে ভিতরে কোনটিতে ইনকাম সবথেকে বেশি ফেসবুক নাকি ইউটিউবে এ বিষয়গুলো নিয়ে ধারণা দেয়ার চেষ্টা করব তাদের মধ্যে থাকেন প্লিজ এটা সাবস্ক্রাইব বাটন এন্ড টার্ন অন দা নোটিফিকেশন answars.com বাংলাদেশের স্বনামধন্য ডোমেইন হোস্টিং ও আইডি সেবাদাতা প্রতিষ্ঠান বর্তমানে প্রতিষ্ঠানটির ডোমেইন রেজিস্ট্রেশন শেয়ার্ড হোস্টিং হোস্টিং ভিপিএস সার্ভার ডেডিকেটেড সার্ভার বাল্ক এসএমএস বিজনেস ইমেইল ইত্যাদি সেবা দিয়ে আসছে এবং বিডিএসট্রিম মেম্বার এছাড়া ড্যান্সার ভিডিও ডেসক্রিপশন বক্সে তাদের সকল ইনফরমেশন প্রবাহিত করা থাকবে আমার facebook-এ ঢুকে যুদ্ধ লাগায় দিছি আমাদের প্রথম পয়েন্টে আমি কিভাবে বুঝবো আমার ভিডিও কনটেন্ট কোন জায়গায় আপলোড করে বেস্ট হবে।

ইউটিউবে ফেসবুকে জিনিসটা কি জানেন ইজি টু ভাইরাল এখানে যে কোন জিনিস যেকোনো সময় খুব সহজে ভাইরাল হয়ে যেতে পারে কারণ এখানে শেয়ার বাটন বলে একটা অপশন আছে ফেসবুকে শেয়ার বাটন কোন জিনিস খেয়াল করার জন্য খুবই গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে আপনি যদি মানুষের ইমোশন নিয়ে একটু খেয়াল দেখাতে পারেন তাহলে আপনাকে থাকায় তিনি বাংলাদেশের ইন্ডিয়াতে ইমোশনাল কন্টাক্ট এত বেশি চলে আমি উদাহরণস্বরূপ বলব আপনার মাইন্ড করবেন না অসহায় কোন মানুষকে কোন কিছু দান করা হলো এটা জাস্ট ভিডিওকন ফেসবুকে আপলোড করে দেখেন পরবর্তী কাজটা করে দিবে ফেসবুকে শেয়ার করতে পারবেন আপনার ফেসবুক পেজে আপনার ফেসবুক প্রোফাইলে ফেসবুক গ্রুপে যে কোন মানুষের কাছে পৌছে দিতে পারবেন আপনার কাছ থেকে আরেকজন দেখবে তার কাছ থেকে আরেকজন দেখবে এভাবে কিন্তু ফেসবুকে খুব দ্রুত কোন কিছু ভাইরাল করানো সম্ভব হয় কিন্তু আমাদের অপরদিকে ইউটিউব এ দিকে তাকায় তাহলে শেয়ার বাটন কাজ করে না আপনি যখন একজন হিসেবে ইউটিউবে যাবেন তখন আপনি শুধুমাত্র ইউটিউব এর ভিডিও দেখতে পারবেন ইউটিউব এর কোন ভিডিও ইউটিউবে শেয়ার করতে পারবে না ফেসবুকে আবার টাইটেল ভিডিও খুব বেশি চলে আপনি যদি কোন মুভি দেখতে চাই কিন্তু আপনি ফেসবুকে থাকবে না।

সরাসরি ইউটিউবে চলে যাবেন আপনি যদি 15 মিনিটের কোন নাটক দেখতে চান তাহলে কিন্তু আপনি ইউটিউবে চলে যাবে নিজে সার্চ করবেন ফেসবুকে সবসময় মানুষ কলিং করতে থাকে এখানে মানুষের সময় কম মানুষ নতুন কিছু সবসময় দেখার জন্য আগ্রহ নিয়ে বসে থাকে এখানে এক থেকে তিন মিনিটের ভিডিও সর্বোচ্চ গেলে 7 থেকে 8 মিনিটের ভিডিও এর বেশি ভিডিও খুব একটা থাকে না অধিকাংশ ভিডিও শর্ট ভিডিও থাকে যার কারণে জায়গায় মানুষ খুব দ্রুত ভিডিও দেখে এবং ভিডিওতে ভিডিওতে বেশি আর অপরদিকে চলে আসি আমরা ইউটিউব গেমিং এডুকেশনাল ভিডিও কিন্তু ভালো চালাতে খুব দ্রুত ইনকাম করা যায় ফেসবুক এবং ইউটিউব এর জন্য নির্দিষ্ট একটি রোগ আছে আমি যদি ইউটিউব এর কথা বলি তাহলে ইউটিউবে মনিটাইজেশন এনাবেল করতে হলে একটু ভালোভাবে শুনবেন 12 মাসের 4000 ঘন্টা ওয়াচ টাইম এবং 1000 সাবস্ক্রাইবার কমপ্লিট করতে হবে আপনি যদি 12 মাসের ভিতরে 4000 ঘন্টা ওয়াচ টাইম এবং 1000 সাবস্ক্রাইবার কমপ্লিট করতে পারেন তাহলে আপনি আপনার ইউটিউব চ্যানেল মনিটাইজেশন এনাবেল করে ইনকাম করতে পারবেন।

আমরা ফেসবুকে দিকে তাকায় তাহলে দেখা যাচ্ছে ফেসবুক একটি পেজ মনিটাইজেশন নির্মূল করতে হলে দশ হাজার টাকা লাগবে পেজে এবং দুই মাসের ভিতরে 10 হাজার ঘন্টা ওয়াচ টাইম কমপ্লিট করতে হবে যেখানে অনেক বেশি মনে হল জিনিসটা কিন্তু আসলে কতটা কঠিন না আমি প্রথম টপিকের বলেছিলাম যে ফেসবুকে ইজি টু ভাইরাল কোন জিনিসকে খুব সহজে ভাইরাল করানো যায় কিন্তু ইউটিউব এ এই জিনিসটা নেয় ইউটিউবে আপনার কনটেন্ট এর সম্পূর্ণ কোয়ালিটির উপর নির্ভর করবে আপনার ভিডিও তামিলের উপর নির্ভর করবে তবে সত্যিকার অর্থে যদি বলতে হয় আমার অভিজ্ঞতা থেকে যে দুটি প্লাটফর্মে ভিতরে কোনটিতে মনিটাইজেশন এনাবেল করা আসলে সহজ তাহলে আমি বলব ইউটিউবে ফেসবুকে আমি অনেকের কাছ থেকে শুনেছি যে তাদের পেজে 10 হাজার ঘন্টা ওয়াচ টাইম দুই মাসের ভিতরে এবং 10 হাজার ফলোয়ার কমপ্লিট তারপরও তারা প্রাইভেসি পলিসি তে আটকে গেছে তাদের সম্পর্কে অনেক ঝামেলা।

অনেক বেশী রোজগার করে খুব সহজে ফেসবুক পেজে মনিটাইজেশন এনাবেল করা যায় না তবে আপনার যদি এই কষ্টটা যেটা ফেসবুকে করবেন সত্যিকার অর্থে বলতে কি জানেন দুই মাসে 10 হাজার ঘন্টা ওয়াচ টাইম আসলে কঠিন কাজ একটা ভিডিও ভাল কেন যদি আপনি মানুষের ইমোশনাল নিয়ে খেলা করে না কেন দুই মাসে এটা কমপ্লিট করা আসলেই কঠিন কাজ তো আমি বলব আপনি যেটা ফেসবুকে দিবেন আপনার যদি কোন ফেসবুকে আপলোড করার মত হয়ে থাকে তাহলে আপনি ফেসবুক আর আপনি যদি ওই টাইপের ভিডিও না হয়ে থাকে আপনি যদি পারেন ইউটিউবে যে ধরনের ভিডিও চলে সেজন্যে ভিডিও নিয়ে কাজ করতে তাহলে আপনি ইউটিউবে কাজ করেন ভাই ইউটিউব সাবস্ক্রাইবার খুব বেশি কঠিন কাজ না আপনাকে ইউটিউব মনিটাইজেশন নিয়ে আরো জানার ইচ্ছা হয় তাহলে আয়োজনে আমি ভিডিওর লিংক দিয়ে দিব ইউটিউব প্লেলিস্ট সেখান থেকে আপনি ইউটিউব নিয়ে যাবতীয় বিষয়গুলো সম্পর্কে জানতে পারবেন।

ফেসবুকের মনিটাইজেশন নিয়ে আরো বেশি খেলে দেহ নাচান ফেসবুকে কিভাবে ইনকাম করতে হবে এ বিষয়গুলো নিয়ে যদি জানতে চান তাহলে এই ভিডিওর কমেন্ট বক্সে কমেন্ট করে আমাকে জানাবেন আমি চেষ্টা করব ফেসবুকের মনিটাইজেশন বাই ইনকমপ্লিট একটি ভিডিও তৈরি করতে অনলাইন ছিল কোন প্লাটফর্মে ইনকাম বেশি কোথায় সব থেকে বেশি ইনকাম করা যায় ফেসবুকে ভিডিওতে বেশি আর ইউটিউবে আপনি ইনকাম করতে পারবেন ইউটিউবে আপনার আদার সাইট থেকে ইনকাম আসে স্পন্সার থেকে ইনকাম হচ্ছে ফেসবুকের স্পন্সরড এগিয়ে আসে কিন্তু অতটা না ইউটিউবে যেতে আপনি নিয়ে কাজ করে ধরে রেখেছে ইউটিউবে যে আমি তাদেরকে স্পন্সার থেকে আপনি বেশি আর্নিং করতে পারবেন সতীর্থ দুটি প্ল্যাটফর্মের বেশ ভালো ইনকাম হয় এখন তারপরও কথা থাকে যে কি কোন টিপস এন্ড ট্রিকস কাজে লাগিয়ে ইনকাম করছে যে যত বেশি মাথা খুঁজে বের করতে পারবে তার ইনকাম তো সব থেকে বেশি হবে আমি চেষ্টা করেছি পোস্টটা  আপনাদেরকে একটা ক্লিয়ার ধারণা দিতে চাই আপনার পোস্ট  কোন প্ল্যাটফর্ম এর জন্য বেস্ট আশা করি আমি আপনাদেরকে একটি হলো বোঝাতে পেরেছি যদি পোস্ট টি ভাল লাগে অবশ্যই লাইক করবেন কমেন্ট করে আপনার মতামত জানাবেন।

সবাই ভালো থাকবেন সুস্থ থাকবেন আর আমাদের সাইটের সাথে থাকবেন নতুন নতুন পোস্ট পেতে এবং আপনাদের বন্ধুদের শেয়ার করে দিবেন পোস্টটি ভালো লাগলে । আমার আর অন্যান্য পোস্ট:

কেন কিনবেন Olax 4G পকেট রাউটার

যে কোন প্রয়োজনে আমার সাথে যোগাযোগ করুন :

facebook contact me

ধন্যবাদ সবাইকে

ভিডিও ফেসবুকে নাকি ইউটিউবে আপলোড করবেন ?

আপডেট সময় : 08:57:09 am, Friday, 8 April 2022

আসসালামু আলাইকুম!

কেমন আছেন সবাই? আশা করি সবাই ভালো আছেন। আমিও আল্লাহর রহমতে ভালই আছি। আজকে আমি আলোচনা করব ভিডিও ফেসবুকে নাকি ইউটিউবে আপলোড করবেন ? কোনটি বেশি লাভজনক

তো বন্ধুরা চলুন শুরু করা যাক :

ভিডিও ফেসবুকে নাকি ইউটিউবে আপলোড করবেন ?

ভিডিও ফেসবুকে নাকি ইউটিউবে আপলোড করবেন ?

আসসালামালাইকুম আমি চাইছি ফেসবুকটা ইউটিউবে ভিডিও কল কিন্তু বেশ ভালো চলে আর আমরা বেশ ভালো সংখ্যক মানুষ ভিডিও দেখে থাকি ফেসবুকে ভিডিও আপলোড করে যেমন ইনকাম করা সম্ভব তেমন ভালো একটা ফিউচার করা সম্ভব কিন্তু সমস্যাটা হলো আমরা এমন অনেকে আছে যারা বেস্ট কোয়ালিটি ফুল ভিডিও কলিং তৈরি করে ইউটিউবে আপলোড করছি বাট সফলতা পাচ্ছি না ফেসবুকে আপলোড করতে পারছি না আর এজন্যই ভিডিওতে আমি তিনটি বিষয় নিয়ে কথা বলব প্রথম দুটি প্ল্যাটফর্ম যেমন ভিন্ন দুটি প্ল্যাটফর্মের অডিয়েন্স a320 আমি কিভাবে বুঝবো আমার ভিডিও কনটেন্ট কোন প্ল্যাটফর্ম এর জন্য বেস্ট আমি তোমার ভিডিও ফেসবুকে আপলোড করবো নাকি ইউটিউবে আপলোড করবো এদের ভিতরে কোন প্লাটফর্মে আমার ভিডিও আপলোড করলে আমি সবথেকে বেশি মানুষের রেসপন্স সবথেকে বেশি পাব আমরা সকলেই জানি যে ফেসবুক বা ইউটিউবে ভিডিও মেক করা সম্ভব কিন্তু এই দুটি প্লাটফর্মে মনিটাইজেশন এনিমেল করতে হলে বেশ কিছু শর্ত পূরণ করতে হয়।

ভিডিও ফেসবুকে নাকি ইউটিউবে আপলোড করবেন ?

কোনটিতে মনিটাইজেশন করার সবথেকে সহজ এবং আপনি খুব দ্রুত এনেবেল করে ইনকাম শুরু করতে পারবেন এটি প্লাটফর্মে ভিতরে কোনটিতে ইনকাম সবথেকে বেশি ফেসবুক নাকি ইউটিউবে এ বিষয়গুলো নিয়ে ধারণা দেয়ার চেষ্টা করব তাদের মধ্যে থাকেন প্লিজ এটা সাবস্ক্রাইব বাটন এন্ড টার্ন অন দা নোটিফিকেশন answars.com বাংলাদেশের স্বনামধন্য ডোমেইন হোস্টিং ও আইডি সেবাদাতা প্রতিষ্ঠান বর্তমানে প্রতিষ্ঠানটির ডোমেইন রেজিস্ট্রেশন শেয়ার্ড হোস্টিং হোস্টিং ভিপিএস সার্ভার ডেডিকেটেড সার্ভার বাল্ক এসএমএস বিজনেস ইমেইল ইত্যাদি সেবা দিয়ে আসছে এবং বিডিএসট্রিম মেম্বার এছাড়া ড্যান্সার ভিডিও ডেসক্রিপশন বক্সে তাদের সকল ইনফরমেশন প্রবাহিত করা থাকবে আমার facebook-এ ঢুকে যুদ্ধ লাগায় দিছি আমাদের প্রথম পয়েন্টে আমি কিভাবে বুঝবো আমার ভিডিও কনটেন্ট কোন জায়গায় আপলোড করে বেস্ট হবে।

ইউটিউবে ফেসবুকে জিনিসটা কি জানেন ইজি টু ভাইরাল এখানে যে কোন জিনিস যেকোনো সময় খুব সহজে ভাইরাল হয়ে যেতে পারে কারণ এখানে শেয়ার বাটন বলে একটা অপশন আছে ফেসবুকে শেয়ার বাটন কোন জিনিস খেয়াল করার জন্য খুবই গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে আপনি যদি মানুষের ইমোশন নিয়ে একটু খেয়াল দেখাতে পারেন তাহলে আপনাকে থাকায় তিনি বাংলাদেশের ইন্ডিয়াতে ইমোশনাল কন্টাক্ট এত বেশি চলে আমি উদাহরণস্বরূপ বলব আপনার মাইন্ড করবেন না অসহায় কোন মানুষকে কোন কিছু দান করা হলো এটা জাস্ট ভিডিওকন ফেসবুকে আপলোড করে দেখেন পরবর্তী কাজটা করে দিবে ফেসবুকে শেয়ার করতে পারবেন আপনার ফেসবুক পেজে আপনার ফেসবুক প্রোফাইলে ফেসবুক গ্রুপে যে কোন মানুষের কাছে পৌছে দিতে পারবেন আপনার কাছ থেকে আরেকজন দেখবে তার কাছ থেকে আরেকজন দেখবে এভাবে কিন্তু ফেসবুকে খুব দ্রুত কোন কিছু ভাইরাল করানো সম্ভব হয় কিন্তু আমাদের অপরদিকে ইউটিউব এ দিকে তাকায় তাহলে শেয়ার বাটন কাজ করে না আপনি যখন একজন হিসেবে ইউটিউবে যাবেন তখন আপনি শুধুমাত্র ইউটিউব এর ভিডিও দেখতে পারবেন ইউটিউব এর কোন ভিডিও ইউটিউবে শেয়ার করতে পারবে না ফেসবুকে আবার টাইটেল ভিডিও খুব বেশি চলে আপনি যদি কোন মুভি দেখতে চাই কিন্তু আপনি ফেসবুকে থাকবে না।

সরাসরি ইউটিউবে চলে যাবেন আপনি যদি 15 মিনিটের কোন নাটক দেখতে চান তাহলে কিন্তু আপনি ইউটিউবে চলে যাবে নিজে সার্চ করবেন ফেসবুকে সবসময় মানুষ কলিং করতে থাকে এখানে মানুষের সময় কম মানুষ নতুন কিছু সবসময় দেখার জন্য আগ্রহ নিয়ে বসে থাকে এখানে এক থেকে তিন মিনিটের ভিডিও সর্বোচ্চ গেলে 7 থেকে 8 মিনিটের ভিডিও এর বেশি ভিডিও খুব একটা থাকে না অধিকাংশ ভিডিও শর্ট ভিডিও থাকে যার কারণে জায়গায় মানুষ খুব দ্রুত ভিডিও দেখে এবং ভিডিওতে ভিডিওতে বেশি আর অপরদিকে চলে আসি আমরা ইউটিউব গেমিং এডুকেশনাল ভিডিও কিন্তু ভালো চালাতে খুব দ্রুত ইনকাম করা যায় ফেসবুক এবং ইউটিউব এর জন্য নির্দিষ্ট একটি রোগ আছে আমি যদি ইউটিউব এর কথা বলি তাহলে ইউটিউবে মনিটাইজেশন এনাবেল করতে হলে একটু ভালোভাবে শুনবেন 12 মাসের 4000 ঘন্টা ওয়াচ টাইম এবং 1000 সাবস্ক্রাইবার কমপ্লিট করতে হবে আপনি যদি 12 মাসের ভিতরে 4000 ঘন্টা ওয়াচ টাইম এবং 1000 সাবস্ক্রাইবার কমপ্লিট করতে পারেন তাহলে আপনি আপনার ইউটিউব চ্যানেল মনিটাইজেশন এনাবেল করে ইনকাম করতে পারবেন।

আমরা ফেসবুকে দিকে তাকায় তাহলে দেখা যাচ্ছে ফেসবুক একটি পেজ মনিটাইজেশন নির্মূল করতে হলে দশ হাজার টাকা লাগবে পেজে এবং দুই মাসের ভিতরে 10 হাজার ঘন্টা ওয়াচ টাইম কমপ্লিট করতে হবে যেখানে অনেক বেশি মনে হল জিনিসটা কিন্তু আসলে কতটা কঠিন না আমি প্রথম টপিকের বলেছিলাম যে ফেসবুকে ইজি টু ভাইরাল কোন জিনিসকে খুব সহজে ভাইরাল করানো যায় কিন্তু ইউটিউব এ এই জিনিসটা নেয় ইউটিউবে আপনার কনটেন্ট এর সম্পূর্ণ কোয়ালিটির উপর নির্ভর করবে আপনার ভিডিও তামিলের উপর নির্ভর করবে তবে সত্যিকার অর্থে যদি বলতে হয় আমার অভিজ্ঞতা থেকে যে দুটি প্লাটফর্মে ভিতরে কোনটিতে মনিটাইজেশন এনাবেল করা আসলে সহজ তাহলে আমি বলব ইউটিউবে ফেসবুকে আমি অনেকের কাছ থেকে শুনেছি যে তাদের পেজে 10 হাজার ঘন্টা ওয়াচ টাইম দুই মাসের ভিতরে এবং 10 হাজার ফলোয়ার কমপ্লিট তারপরও তারা প্রাইভেসি পলিসি তে আটকে গেছে তাদের সম্পর্কে অনেক ঝামেলা।

অনেক বেশী রোজগার করে খুব সহজে ফেসবুক পেজে মনিটাইজেশন এনাবেল করা যায় না তবে আপনার যদি এই কষ্টটা যেটা ফেসবুকে করবেন সত্যিকার অর্থে বলতে কি জানেন দুই মাসে 10 হাজার ঘন্টা ওয়াচ টাইম আসলে কঠিন কাজ একটা ভিডিও ভাল কেন যদি আপনি মানুষের ইমোশনাল নিয়ে খেলা করে না কেন দুই মাসে এটা কমপ্লিট করা আসলেই কঠিন কাজ তো আমি বলব আপনি যেটা ফেসবুকে দিবেন আপনার যদি কোন ফেসবুকে আপলোড করার মত হয়ে থাকে তাহলে আপনি ফেসবুক আর আপনি যদি ওই টাইপের ভিডিও না হয়ে থাকে আপনি যদি পারেন ইউটিউবে যে ধরনের ভিডিও চলে সেজন্যে ভিডিও নিয়ে কাজ করতে তাহলে আপনি ইউটিউবে কাজ করেন ভাই ইউটিউব সাবস্ক্রাইবার খুব বেশি কঠিন কাজ না আপনাকে ইউটিউব মনিটাইজেশন নিয়ে আরো জানার ইচ্ছা হয় তাহলে আয়োজনে আমি ভিডিওর লিংক দিয়ে দিব ইউটিউব প্লেলিস্ট সেখান থেকে আপনি ইউটিউব নিয়ে যাবতীয় বিষয়গুলো সম্পর্কে জানতে পারবেন।

ফেসবুকের মনিটাইজেশন নিয়ে আরো বেশি খেলে দেহ নাচান ফেসবুকে কিভাবে ইনকাম করতে হবে এ বিষয়গুলো নিয়ে যদি জানতে চান তাহলে এই ভিডিওর কমেন্ট বক্সে কমেন্ট করে আমাকে জানাবেন আমি চেষ্টা করব ফেসবুকের মনিটাইজেশন বাই ইনকমপ্লিট একটি ভিডিও তৈরি করতে অনলাইন ছিল কোন প্লাটফর্মে ইনকাম বেশি কোথায় সব থেকে বেশি ইনকাম করা যায় ফেসবুকে ভিডিওতে বেশি আর ইউটিউবে আপনি ইনকাম করতে পারবেন ইউটিউবে আপনার আদার সাইট থেকে ইনকাম আসে স্পন্সার থেকে ইনকাম হচ্ছে ফেসবুকের স্পন্সরড এগিয়ে আসে কিন্তু অতটা না ইউটিউবে যেতে আপনি নিয়ে কাজ করে ধরে রেখেছে ইউটিউবে যে আমি তাদেরকে স্পন্সার থেকে আপনি বেশি আর্নিং করতে পারবেন সতীর্থ দুটি প্ল্যাটফর্মের বেশ ভালো ইনকাম হয় এখন তারপরও কথা থাকে যে কি কোন টিপস এন্ড ট্রিকস কাজে লাগিয়ে ইনকাম করছে যে যত বেশি মাথা খুঁজে বের করতে পারবে তার ইনকাম তো সব থেকে বেশি হবে আমি চেষ্টা করেছি পোস্টটা  আপনাদেরকে একটা ক্লিয়ার ধারণা দিতে চাই আপনার পোস্ট  কোন প্ল্যাটফর্ম এর জন্য বেস্ট আশা করি আমি আপনাদেরকে একটি হলো বোঝাতে পেরেছি যদি পোস্ট টি ভাল লাগে অবশ্যই লাইক করবেন কমেন্ট করে আপনার মতামত জানাবেন।

সবাই ভালো থাকবেন সুস্থ থাকবেন আর আমাদের সাইটের সাথে থাকবেন নতুন নতুন পোস্ট পেতে এবং আপনাদের বন্ধুদের শেয়ার করে দিবেন পোস্টটি ভালো লাগলে । আমার আর অন্যান্য পোস্ট:

কেন কিনবেন Olax 4G পকেট রাউটার

যে কোন প্রয়োজনে আমার সাথে যোগাযোগ করুন :

facebook contact me

ধন্যবাদ সবাইকে