ঢাকা 11:19 am, Saturday, 4 February 2023

পূজা বাড়ির গরম ড্যাস ২০২২;

  • আপডেট সময় : 11:39:34 am, Monday, 5 September 2022 59 বার পড়া হয়েছে

পূজা বাড়ির গরম ড্যাস-বন্ধু রা আজ আপনারা কেমন আছেন? আমি ভালো আছি। আজ এক মজার বেপার পড়বো। সে তা হল নাছ বা ড্যাস এর বেপার এ। বর্তমান যুগের বিশেষ করে ছেলে মানুষ রা  হট ড্যাস এর প্রতি আসক্ত বেশি হয়ে গেছে।এর ফলে ছেলেরা প্রথমত মোবাইল ফোন এর প্রতি অনেক বেশি আসক্ত।

ক্রমান্বয়ে পড়া লেখা থেকে বাহির হচ্ছে। বাবা মায়ের কর্তব্য থেকে বিরত থাকছে। এতে ছেলে রা প্রেমে জরাচ্ছে, প্রেমে ব্রেকআপ হলে নানান অপকর্মে লিপ্ত হয়ে যাচ্ছে। এর এতে নেশার অতিরিক্ত কিছু নেই। যা হোক আসল কথায় আসি। হট গান এবং ড্যান্স এটি বাংলাদেশের একটি অরিতিক্ত ক্ষতি কর একটি প্রভাব। বর্তমান বাংলাদেশ এ যেমন বাবা মা রা কর্মে কাজে ব্যাস্ত। পূজা বাড়ির গরম ড্যাস

পূজা বাড়ির গরম ড্যাস

তেমনি ভাবে পিতা মাতা রা ছেলে মেয়েদের প্রতি খেয়াল রাখতে ভূলে গেছে। আর এর ফাঁকেই বাচ্চারা পেয়ে গেছে তাদের খারাব আত্ম প্রকাশ ঘটাতে। এখন তো সামান্য স্কুল পরুয়া শিক্ষার্থীরা সিকারেট এর নেশা থেকে সকল নেশা ও অপকর্মে লিপ্ত হয়ে যাচ্ছে। আর এই অপকর্মে লিপ্ত হওয়ায় যারা সাহায্য করছে তারা আরো ভয়ংকর রুপে আছে।

পূজা বাড়ির গরম ড্যাস

এতে বাবা মারা কিছুই জানছে না, বরং বাচ্চাদের ইচ্ছাকে না দেখেই প্রাধান্য দিছে। এই বিষয় গুলো নিয়ে সবাই কথা বলে না। কিন্তু বিশ্বাস করুন এমন টাই হচ্ছে। বাংলাদেশের ৯০% তরুন ই খারাব কজে লিপ্ত। হতে পারে সে নেশা খোর বা অন্যান্য সকল খারাব কাজে লিপ্ত। মোবাইল ফোন যতটা ভালো তার থেকে বেশি খারাব। মোবাইল তৈরি কারী একজন কোন একজন বলেছে যে, ভালো থকতে চাইলে যতটা সম্ভব মোবাইল পরিহার করুন।

পূজা বাড়ির গরম ড্যাস

হট গান বা পর্নোগ্রাফি

বাংলাদেশের যুবক দের গভীর ভাবে অতিরিক্ত মাত্রায় একাকিত্ব ক্রমে শেষ করে দিচ্ছে। অথচ অভিভাবক গন তারা সম্পূর্ণ রুপে অজানা। আমাদের যত দ্রুত সম্ভব এই বিষয় গুলো থেকে সরে আসতে হবে। বিশেষ করে পিতা-মাতার কর্তব্য অপরিসীম। অভিভাবক গন আসুন বাচ্চা,ছেলে মেয়ে,শিক্ষার্থী, সবাই কে সতর্ক করি, এই পথ গুলো থেকে তাদের ফিরিয়ে আনি আলোর পথে।

অভিভাবক দের কাজ হচ্ছেঃ

ছেলে মেয়েরা মোবাইল ফোন ব্যবহার করে করুক, তাদের মোবাইল ফোন প্রতিনিয়ত চেক করুন বা অন্তত্য পড়ালেখা এবং রাতের সময়ে ফোন নিজের কাছে রাখুন। তাদের উপর সাপ্তাহে অন্তত্য ৩ দিন সম্পূর্ণ নজরে রাখেন। তারা কি করে, কেথায় যায়, কোথায় সময় বেশি কাটায়, কার সাথে কথা বলে, ইত্যাদি ইত্যাদি।

চিপা চাপা জায়গা

যেমন বন্ধ ঘড়, লোকহীন রাস্তা, লোকহীন যায়গা এগুলে যায় কিনা লক্ষ রাখ উচিৎ। কারণ এগুলে তে বেশীর ভাগ নেশাকৃত ছেলে রা যায়। সর্বত্তম কথা হলো, মেয়েদের পিতা মাতার কর্তব্য বেশি থাকা দরকার। কারণ, মেয়েরা ঠাই না দিলে কোন ছেলেই খারাব কর্মে লিপ্ত হবে না। যদিও ছেলেরা খারাব কর্মে অন্যন্য পথেও যেতে পারে।

কিন্তু এগুলোর মূল কারণ হলো

পিতা মাতার কর্তব্য হীনতা এবং মেয়ে। তাই আসুন, তাদের এই প্রভাব থেকে আলাদা পথে আনি। ইসলাম একটি শান্তির ধর্ম। এ ধর্মে হাসলেও সওয়াব। তাহলে আমরা কেন এগুলা খারাব কাজে নিজেদের জরাবো। সব সময় সদা সত্য কথা বলবো এই প্রতিজ্ঞা করে সারা জীবন চলবো।

কোন খারাব কাজে নিজেকে বা অন্য

কে জরাতে দিবো না। আসলে যাদের এটিটিউড একটু বেশি তারা ভাবতেই পারে যে। এই কথা গুলো বলে জ্ঞান দেওয়ার কি আছে? কিন্তু এটা তাদের উদ্দেশ্য, জ্ঞান দেওয়ার কিছু নাই, তাই বলে এতো ভুল হচ্ছে এখনো। কথা গুলো সামান্য হলেও অনেক উপকারি। ভেবে না, চিন্তা করে দেখুন। সমাজে নোংরামি দিয়ে স্বয়ংসম্পূর্ণ হয়ে গেছে। আশা করি সকলেই বুঝেছেন। আল্লাহ আপনাদের হেদায়েত দান করুক, আমীন।

আরও পড়ুন >>>>

বিয়ে বাড়ির ডিজে গান ২০২২;

পূজা বাড়ির গরম ড্যাস ২০২২;

আপডেট সময় : 11:39:34 am, Monday, 5 September 2022

পূজা বাড়ির গরম ড্যাস-বন্ধু রা আজ আপনারা কেমন আছেন? আমি ভালো আছি। আজ এক মজার বেপার পড়বো। সে তা হল নাছ বা ড্যাস এর বেপার এ। বর্তমান যুগের বিশেষ করে ছেলে মানুষ রা  হট ড্যাস এর প্রতি আসক্ত বেশি হয়ে গেছে।এর ফলে ছেলেরা প্রথমত মোবাইল ফোন এর প্রতি অনেক বেশি আসক্ত।

ক্রমান্বয়ে পড়া লেখা থেকে বাহির হচ্ছে। বাবা মায়ের কর্তব্য থেকে বিরত থাকছে। এতে ছেলে রা প্রেমে জরাচ্ছে, প্রেমে ব্রেকআপ হলে নানান অপকর্মে লিপ্ত হয়ে যাচ্ছে। এর এতে নেশার অতিরিক্ত কিছু নেই। যা হোক আসল কথায় আসি। হট গান এবং ড্যান্স এটি বাংলাদেশের একটি অরিতিক্ত ক্ষতি কর একটি প্রভাব। বর্তমান বাংলাদেশ এ যেমন বাবা মা রা কর্মে কাজে ব্যাস্ত। পূজা বাড়ির গরম ড্যাস

পূজা বাড়ির গরম ড্যাস

তেমনি ভাবে পিতা মাতা রা ছেলে মেয়েদের প্রতি খেয়াল রাখতে ভূলে গেছে। আর এর ফাঁকেই বাচ্চারা পেয়ে গেছে তাদের খারাব আত্ম প্রকাশ ঘটাতে। এখন তো সামান্য স্কুল পরুয়া শিক্ষার্থীরা সিকারেট এর নেশা থেকে সকল নেশা ও অপকর্মে লিপ্ত হয়ে যাচ্ছে। আর এই অপকর্মে লিপ্ত হওয়ায় যারা সাহায্য করছে তারা আরো ভয়ংকর রুপে আছে।

পূজা বাড়ির গরম ড্যাস

এতে বাবা মারা কিছুই জানছে না, বরং বাচ্চাদের ইচ্ছাকে না দেখেই প্রাধান্য দিছে। এই বিষয় গুলো নিয়ে সবাই কথা বলে না। কিন্তু বিশ্বাস করুন এমন টাই হচ্ছে। বাংলাদেশের ৯০% তরুন ই খারাব কজে লিপ্ত। হতে পারে সে নেশা খোর বা অন্যান্য সকল খারাব কাজে লিপ্ত। মোবাইল ফোন যতটা ভালো তার থেকে বেশি খারাব। মোবাইল তৈরি কারী একজন কোন একজন বলেছে যে, ভালো থকতে চাইলে যতটা সম্ভব মোবাইল পরিহার করুন।

পূজা বাড়ির গরম ড্যাস

হট গান বা পর্নোগ্রাফি

বাংলাদেশের যুবক দের গভীর ভাবে অতিরিক্ত মাত্রায় একাকিত্ব ক্রমে শেষ করে দিচ্ছে। অথচ অভিভাবক গন তারা সম্পূর্ণ রুপে অজানা। আমাদের যত দ্রুত সম্ভব এই বিষয় গুলো থেকে সরে আসতে হবে। বিশেষ করে পিতা-মাতার কর্তব্য অপরিসীম। অভিভাবক গন আসুন বাচ্চা,ছেলে মেয়ে,শিক্ষার্থী, সবাই কে সতর্ক করি, এই পথ গুলো থেকে তাদের ফিরিয়ে আনি আলোর পথে।

অভিভাবক দের কাজ হচ্ছেঃ

ছেলে মেয়েরা মোবাইল ফোন ব্যবহার করে করুক, তাদের মোবাইল ফোন প্রতিনিয়ত চেক করুন বা অন্তত্য পড়ালেখা এবং রাতের সময়ে ফোন নিজের কাছে রাখুন। তাদের উপর সাপ্তাহে অন্তত্য ৩ দিন সম্পূর্ণ নজরে রাখেন। তারা কি করে, কেথায় যায়, কোথায় সময় বেশি কাটায়, কার সাথে কথা বলে, ইত্যাদি ইত্যাদি।

চিপা চাপা জায়গা

যেমন বন্ধ ঘড়, লোকহীন রাস্তা, লোকহীন যায়গা এগুলে যায় কিনা লক্ষ রাখ উচিৎ। কারণ এগুলে তে বেশীর ভাগ নেশাকৃত ছেলে রা যায়। সর্বত্তম কথা হলো, মেয়েদের পিতা মাতার কর্তব্য বেশি থাকা দরকার। কারণ, মেয়েরা ঠাই না দিলে কোন ছেলেই খারাব কর্মে লিপ্ত হবে না। যদিও ছেলেরা খারাব কর্মে অন্যন্য পথেও যেতে পারে।

কিন্তু এগুলোর মূল কারণ হলো

পিতা মাতার কর্তব্য হীনতা এবং মেয়ে। তাই আসুন, তাদের এই প্রভাব থেকে আলাদা পথে আনি। ইসলাম একটি শান্তির ধর্ম। এ ধর্মে হাসলেও সওয়াব। তাহলে আমরা কেন এগুলা খারাব কাজে নিজেদের জরাবো। সব সময় সদা সত্য কথা বলবো এই প্রতিজ্ঞা করে সারা জীবন চলবো।

কোন খারাব কাজে নিজেকে বা অন্য

কে জরাতে দিবো না। আসলে যাদের এটিটিউড একটু বেশি তারা ভাবতেই পারে যে। এই কথা গুলো বলে জ্ঞান দেওয়ার কি আছে? কিন্তু এটা তাদের উদ্দেশ্য, জ্ঞান দেওয়ার কিছু নাই, তাই বলে এতো ভুল হচ্ছে এখনো। কথা গুলো সামান্য হলেও অনেক উপকারি। ভেবে না, চিন্তা করে দেখুন। সমাজে নোংরামি দিয়ে স্বয়ংসম্পূর্ণ হয়ে গেছে। আশা করি সকলেই বুঝেছেন। আল্লাহ আপনাদের হেদায়েত দান করুক, আমীন।

আরও পড়ুন >>>>

বিয়ে বাড়ির ডিজে গান ২০২২;